শুক্রবার,৯ই জুন, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ।২৬শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ।
  1. NGO
  2. অপরাধ
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-আদালত
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আবহাওয়া
  7. উন্নয়ন
  8. করোনাভাইরাস
  9. খেলাধুলা
  10. চাকরি
  11. জাতীয়
  12. তথ্যপ্রযুক্তি
  13. দেশজুড়ে
  14. ধর্ম
  15. প্রবাস

ঘূর্ণিঝড় ‘মোখা’ ছয় জেলায় জলোচ্ছ্বাসের শঙ্কা

প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
মে ১৩, ২০২৩ ৯:৫৩ পূর্বাহ্ণ
ঘূর্ণিঝড় ‘মোখা’ ছয় জেলায় জলোচ্ছ্বাসের শঙ্কা

অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘মোখা’ উপকূলের দিকে এগিয়ে আসছে। এই ঘূর্ণিঝড়ের কারণে ছয় জেলায় হতে পারে জলোচ্ছ্বাস। জেলাগুলো হলো- চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, বরিশাল, ভোলা ও বরগুনা।

শনিবার (১৩ মে) মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী মো. এনামুর রহমান। ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচির বাস্তবায়ন বোর্ডের জরুরি সভা শেষে তিনি সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, গতকাল শুক্রবার (১২ মে) সকালে ‘মোখা’ অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নেয়। এটি এখনো উত্তর ও উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হচ্ছে। যেভাবে অগ্রসর হচ্ছে, আশঙ্কা করছি, মিয়ানমার ও বাংলাদেশের কক্সবাজার জেলায় আঘাত হানবে। এর প্রভাবে চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, বরিশাল, ভোলা ও বরগুনাসহ বিভিন্ন এলাকায় জলোচ্ছ্বাস হতে পারে।

জলোচ্ছ্বাসের উচ্চতা নিয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, টেকনাফ ও কক্সবাজারের জন্য সুনির্দিষ্ট করে দুই-তিন মিটার উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস হতে পারে। আর চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, বরিশাল, বরগুনা এবং ভোলার জন্য দুই মিটারের কম উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস হতে পারে।

তিন মিটারের বেশি উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস হলে আশ্রয়কেন্দ্রের লোকজনের জন্য একটি আশঙ্কা থেকে যায় বলে জানান প্রতিমন্ত্রী।

ঘূর্ণিঝড় ‘মোখা’

তিনি জানান, ঘূর্ণিঝড়টি রোববার সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে আঘাত হানতে পারে। এখন পর্যন্ত যে দূরত্ব আছে, আগামীকাল সকাল থেকেই উপকূল স্পর্শ করতে থাকবে এটি।

এনামুর রহমান বলেন, ঘূর্ণিঝড়ের অবস্থান, পথ ও গতি বিবেচনা করে আমরা স্থির করেছি, কক্সবাজার বন্দরকে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত দেখাতে। আর চট্টগ্রাম ও পায়রা বন্দরে আট নম্বর মহাবিপদ সংকেত থাকবে। মংলায় থাকবে চার নম্বর সতর্ক সংকেত।

১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত কখন থেকে কার্যকর হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, শনিবার দুপুর আড়াইটা থেকে এটি কার্যকর হবে। এখন সেন্টমার্টিনের সবাইকে আশ্রয়কেন্দ্রে আনা হলেও চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের শতভাগ আনা সম্ভব হয়নি।

ঘূর্ণিঝড় ‘মোখা’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, গতকাল শুক্রবার (১২ মে) সকালে ‘মোখা’ অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নেয়। এটি এখনো উত্তর ও উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হচ্ছে। যেভাবে অগ্রসর হচ্ছে, আশঙ্কা করছি, মিয়ানমার ও বাংলাদেশের কক্সবাজার জেলায় আঘাত হানবে। এর প্রভাবে চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, বরিশাল, ভোলা ও বরগুনাসহ বিভিন্ন এলাকায় জলোচ্ছ্বাস হতে পারে।

জলোচ্ছ্বাসের উচ্চতা নিয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, টেকনাফ ও কক্সবাজারের জন্য সুনির্দিষ্ট করে দুই-তিন মিটার উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস হতে পারে। আর চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, বরিশাল, বরগুনা এবং ভোলার জন্য দুই মিটারের কম উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস হতে পারে।

আপনার মতামত প্রদান করুন

সর্বশেষ - খেলাধুলা